সর্বকালের সেরা ১০ প্রডাক্ট ডিজাইনার

09/03/2019

একজন প্রডাক্ট ডিজাইনার তার উদ্ভাবন এবং ডিজাইন দ্বারা লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবনে উন্নয়ন সাধন করে। বিশ্বের বড় বড় কর্পোরেশনের যে সকল প্রোডাক্ট ডিজাইনাররা তাদের অভাবনীয় প্রোডাক্ট  ডিজাইনের মাধ্যমে ইতিহাসে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবেন আমরা অনেকেই তাদের চিনি না। চলুন আজ সেই সেরা ১০জন প্রডাক্ট ডিজাইনারদের সাথে আমরা পরিচিত হই।

© Apple – Jonathan Ive, Chief Design Officer

জোনাথন আইভ (Jonathan Ive) 

স্বনামধন্য এপল কে চেনে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। অ্যাপলের চিফ ডিজাইন অফিসার (সিডিও) হিসেবে ভারপ্রাপ্রাপ্ত থাকাকালীন জোনাথন বিশ্বের সেরা কিছু ইলেকট্রনিক্স প্রোডাক্ট এবং গেজেটস ডিজাইন করেন। তিনি ১৯৯২ সালে অ্যাপলে যোগ দেন। পাশাপাশি লন্ডনের রয়্যাল কলেজ অফ আর্টের চ্যান্সেলর পদে নিয়োজিত ছিলেন।

অ্যাপল এর প্রডাক্ট ডিজাইনের দশ বছর পর, তাকে ডিজাইনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসাবে পদোন্নতি দেওয়া হয়। আইভেল আইম্যাক, পাওয়ার ম্যাক জি 4 কিউব, আইপড, আইফোন, আইপ্যাড, ম্যাকবুক এবং অ্যাপলের মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম আইওএসের ইউজার ইন্টারফেসের অংশগুলি তিনি ডিজাইন করেন।

আইভ তার ডিজাইন এবং পেটেন্টের জন্য বেশ প্রশংসা ও সম্মান কুড়িয়েছেন। যুক্তরাজ্যে, তিনি রয়েল ডিজাইনার ফর ইন্ডাস্ট্রি (আরডিআই), রয়্যাল একাডেমি অফ ইঞ্জিনিয়ারিং (হোনএফআরইং) এর অনারারি ফেলো এবং ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অর্ডার অফ নাইট কমান্ডার (কেবিই) নিযুক্ত হয়েছেন। ২০১৮ সালে, ইভকে অধ্যাপক হকিং ফেলোশিপে ভূষিত করা হয়। সংস্কৃতি লেখকদের ২০০৪-এর বিবিসি জরিপে আইভকে ব্রিটিশ সংস্কৃতিতে সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্যক্তি হিসাবে স্থান দেওয়া হয়। তার ডিজাইনগুলি অ্যাপলের সাফল্যের সাথে অবিচ্ছেদ্য হিসাবে বর্নিত হয়েছে।

ফিনান্সিয়াল টাইমসের একটি সাক্ষাত্কারে ২রা জুন ২০১৮, ইভ ঘোষণা করেন, সাতাশ বছর পরে অ্যাপলকে ছেড়ে তার নিজস্ব ডিজাইন ফার্ম, লাভফ্রম শুরু করবেন আরেক ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডিজাইনার মার্ক মার্কসনের সাথে।

© Dyson – James Dyson, Founder

জেমস ডাইসন (James Dyson)

ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের কথা আসলেই, ডাইসন এর নাম চলে আসে। স্যার জেমস ডাইসন (জন্ম: ২ মে ১৯৪৭)। ডাইসন একজন ব্রিটিশ উদ্ভাবক, ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডিজাইনার এবং প্রতিষ্ঠাতা ও ডাইসন লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী ।
ডাইসনের উদ্ভাবন ইলেক্ট্রনিক শিল্প জগতকে এক নতুন স্তরে নিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। নো-ব্লেড এয়ার মাল্টিপ্লায়ার ফ্যান এবং বিশ্বখ্যাত এয়ারব্লেড হ্যান্ড ড্রায়ারের মতো প্রয়োজনীয় আবিষ্কারগুলো কেবল একটি সম্পূর্ণ শিল্পকেই রূপ দেয়নি, বরং লক্ষ লক্ষ মানুষের দৈনন্দিন জীবনে যোগ করেছে ভিন্ন মাত্রা। 
সানডে টাইমস রিচ লিস্ট ২০১৩ অনুসারে, তার মোট সম্পদ ১৩.৯ বিলিয়ন ডলার। তিনি আগস্ট ২০১১ থেকে জুলাই ২০১৭ পর্যন্ত রয়্যাল কলেজ অফ আর্টের প্রোভোস্ট হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ডাইসনের উইল্টশায়ার ক্যাম্পাসে একটি নতুন বিশ্ববিদ্যালয় চালু করেন।

© Nintendo – Kenichiro Ashida, Product Designer

কেনিচিরো আশিদা (Kenichiro Ashida)

জাপানী জায়ান্ট দুই জনপ্রিয় ও সফল ভিডিও গেম কনসোল নিন্টেন্ডো ডিএস এবং নিন্টেন্ডো ওয়াই এর মূল আর্কিটেক্ট ডিজাইনার কেনিচিরো আশিদা । গতি-নিয়ন্ত্রণ অভিযোজনের কারনে আশিদা উই কনসোলের জন্য অগ্রণী ভূমিকা রাখে। এই সময়ে, ভিডিও গেম শিল্পে এটিই প্রথম ছিল। এই দুটি কনসোল ভিডিও গেম শিল্পে নতুন মাত্রা যোগ করে এবং সারা বিশ্ব জুড়ে কয়েক মিলিয়ন মানুষের মন জয় করে নেয়। এটি অনেক সময় ধরে জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করে।

© Braun – Dieter Rams, Industrial Designer

ডিয়েটার র‌্যামস (Dieter Rams)

বিউটি ও লাইফ স্টাইল পন্য ডিজাইন এবং ফাংশনের জন্য অনবদ্য জনপ্রিয় ব্র্যান্ড ব্রউন। ডিয়েটার র‌্যামস বিশ্বখ্যাত গ্রাহক পণ্য সংস্থা ব্রউনের  নেতৃত্বে আছেন। ডিয়েটার ডিজাইনের দশটি নীতি “Ten principles for good design” প্রবর্তন করেন যা ডিজাইন এর মানকে নিরিখ করতে সহায়তা করে।

© Motorola – Jim Wicks, Head of Design

জিম উইকস  (Jim Wicks)

সেলফোনের জগতে মটোরোলা অন্যতম একটি ব্র্যান্ড। মটোরোলা যখন প্রথম মটোরেজর মডেলটি  উন্মোচন করে তখন সেলফোনের বাজারে বেশ সারা ফেলে দিয়েছিল। মটরেজর ডিজাইনের লিড ডিজাইনে ছিলেন  জিম উইকস। জিম তার আগে ছিলেন বিখ্যাত সনি ব্র্যান্ডের উদ্ভাবনী কেন্দ্রের ডিজাইন আর্কিটেক্ট। 

© Marc Newson, Industrial Designer

মার্ক নিউজন (Marc Newson)

মার্ক নিউজন একজন পুরষ্কারপ্রাপ্ত বিখ্যাত প্রডাক্ট ডিজাইনার। তিনি প্রযুক্তি থেকে শুরু আসবাব, পরিবহন, ফ্যাশন এবং বিলাসবহুল বিমান এবং ইয়ট ডিজাইন করেন।  নিউজন তার সমসাময়িক প্রজন্মের অন্যতম প্রভাবশালী ডিজাইনার হওয়ার পাশাপাশি, তার কাজগুলি সারা পৃথিবীর ডিজাইন জাদুঘরে প্রদর্শিত হয়েছে।

© Wikipedia – Lloyd Groff Copeman, Inventor

লয়েড গ্রাফ কোপম্যান (Lloyd Groff Copeman)

লয়েড কোপম্যান একজন আমেরিকান উদ্ভাবক এবং প্রডাক্ট ডিজাইনার। কোপম্যানের উদ্ভাবনী আবিষ্কারের কারনেই আজ আমরা নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যগুলির ব্যাবহারের দরুন জীবনকে এত সহজ করে তুলতে পেরেছি।  বৈদ্যুতিক চুলা এবং আইস কিউব ট্রে এর মতো নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি এই অসাধারণ প্রতিভাবান মানুষটির আবিষ্কার। সেই সাথে ৭০০ টিরও বেশি পণ্য তার নামে পেটেন্ট করা হয়।

© Eva Zeisel, Industrial Designer

ইভা জেইসেল (Eva Zeisel)

ইভা জেইসেল  শিল্পডিজাইনে এমন একজন আইকনিক যিনি সিরামিক শিল্পকে আজকের মতো জনপ্রিয় অবস্থানে নিয়ে আসতে সাহায্য করেছিলেন।

ইভা জেইসেল ১৩ নভেম্বর, ১৯০৬ সালে হাঙ্গেরির বুদাপেস্টে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একজন অত্যন্ত খ্যাত এবং সম্মানিত ডিজাইনার ছিলেন। তার সর্বাধিক মর্যাদাপূর্ণ সময়টি ছিল ২০০৫ সাল যখন তিনি ন্যাশনাল ডিজাইন যাদুঘর, স্মিথসোনিয়ানের লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্টের জন্য জাতীয় ডিজাইন পুরষ্কার পান। ৯৯ বছর বয়সে তিনি এই পুরষ্কারটি পান। ১০৫ বছর বয়সে তিনি ২০ ডিসেম্বর, ২০১১ এ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

Zaha Hadid - Architect & Product Designer - Photo by © Brigitte Lacombe
© Brigitte Lacombe – Zaha Hadid, Architect & Product Designer

যাহা মোহাম্মদ হাদিদ (Zaha Hadid)

যাহা মোহাম্মদ হাদিদ একজন ইরাকি-ব্রিটিশ স্থপতি। তার জন্ম ৩১ শে অক্টোবর ১৯৫০ সাল। তিনি ২০০৪ সালে প্রিটসকার আর্কিটেকচার পুরষ্কার প্রাপ্ত প্রথম নারী। যাহা ২০১০ এবং ২০১১ সালে যুক্তরাজ্যের সর্বাধিক মর্যাদাপূর্ণ আর্কিটেকচারাল পুরষ্কার “স্ট্রিলিং পুরস্কার” পান। ২০১২ সালে রানী ২য় এলিজাবেথ স্থাপত্যের সেবার জন্য তাকে ড্যাম করেছিলেন এবং ২০১৫ সালে তিনি রয়েল সোনার পুরস্কারপ্রাপ্ত প্রথম এবং একমাত্র নারী হিসেবে রয়েল ইনস্টিটিউট অফ ব্রিটিশ আর্কিটেক্টসের পদকে ভূষিত করা হয়।
এই প্রিজকার পুরষ্কার বিজয়ী এমন সব পণ্য ডিজাইন করেন যা গয়না এবং আসবাব থেকে শুরু করে বিলাসবহুল ইয়ট পর্যন্ত কোন কিছুই বাদ যায়নি। ২০১৬ এর ৩১শে  মার্চ, ৬৫ বছর বয়সে যাহা মৃত্যবরন করেন। 

© Philippe Starck, Industrial Designer

ফিলিপ স্টার্ক (Philippe Starck)

“Subversive, ethical, ecological, political, humorous… this is how I see my duty as a designer.” Philippe Starck

ফিলিপ স্টার্ক একজন স্বতন্ত্র ডিজাইনার এবং এমন আইকনিক পণ্য ডিজাইনার, যার কাজগুলি বিভিন্ন শাখায় বিস্তৃত। ১৯৮০ সালে স্টার্ক জাপানে অসাধারণ কিছু বিল্ডিং এর আর্কিটাকচারাল ডিজাইন করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দেন। টোকিও, ওসাকা, ব্যারন ভার্ট, প্যারিস, রিও ডি জেনেরিও, নিউ ইওর্ক ছাড়াও অসংখ্য দেশে স্টার্কের মৌলিক স্থপতি ডিজাইনের সুনাম ছড়িয়ে আছে। 
স্টার্ক একই সাথে একজন উদ্ভাবক, আর্কিটেক্ট, ডিজাইনার, শৈল্পিক পরিচালক। কিন্তু তার চেয়েও বড় পরিচয় হলো ফিলিপ স্টার্ক একজন অত্যন্ত সৎ লোক যাকে সরাসরি রেনেসাঁর শিল্পীদের বংশোদ্ভূত বলা যাতে পারে।

সূত্র : Design Wanted, Thinking / Editorial Patrick Abbattista, Wikipedia