বৈবাহিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে স্ত্রীর লম্বা ও মানসম্পন্ন চুলের প্রভাব দেখানো হয়েছে।

স্ত্রীদের লম্বা ও মানসম্পন্ন চুল স্বামীদের যৌন আকাঙ্ক্ষা বাড়ায়

মে ২৮, ২০২৪

সম্প্রতি সাউথ কোরিয়ার একটি গবেষণায় জানা গেছে, বৈবাহিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে মহিলাদের চুলের মান এবং দৈর্ঘ্য সেক্সুয়াল ফ্রিকোয়েন্সিকে প্রভাবিত করতে পারে। তবে গবেষকরা জানিয়েছেন এক্ষেত্রে পুরুষদের চুলের দৈর্ঘ্য বা গুণমান কোন প্রভাব ফেলে না।

গবেষকরা তাদের গবেষণায় উল্লেখ করেছেন, বহু শতাব্দী ধরেই মহিলাদের লম্বা, ঘন, রেশমি চুলের উপমা নিয়ে নানা রকম বিখ্যাত নারী চরিত্র বা পেইন্টিং তৈরি হয়েছে। এই দিকটি মাথায় রেখে গবেষকরা মহিলাদের চুলের দৈর্ঘ্য এবং গুণমান পুরুষদের মনে কোন রকম আকর্ষণ তৈরি করে কি না এই বিষয়টি জানার জন্য এই গবেষণাটি করেন।

গবেষকরা দক্ষিণ কোরিয়ার ২০৪ জন বিবাহিত হেটারোসেক্সুয়াল দম্পতির উপর এই গবেষণাটি পরিচালনা করেন। গবেষণায় জানা যায়, মহিলাদের চুলের গুণমান সেক্সুয়াল ফ্রিকোয়েন্সির সাথে ইতিবাচকভাবে সম্পর্কযুক্ত। গবেষণায় দেখা যায়, অংশগ্রহণকারী যেসকল মহিলাদের চুল স্বাস্থ্যবান, চকচকে সেইসব মহিলাদের স্বামীরা তাদের স্ত্রীদের ওপর বেশি আকর্ষণ অনুভব করেন, যা তাদেরকে তীব্র যৌন আকাঙ্ক্ষা এবং আরও ঘন ঘন যৌন মিলনের দিকে পরিচালিত করে।

গবেষণায় আরও জানা যায়, মহিলাদের চুলের দৈর্ঘ্যও সেক্সুয়াল ফ্রিকোয়েন্সির ক্ষেত্রে একটি ইতিবাচক প্রবণতা দেখায়। জানা যায় স্ত্রীদের লম্বা চুল স্বামীদের মধ্যে আকর্ষণ এবং যৌন আকাঙ্ক্ষা বৃদ্ধিতে অবদান রাখে। লম্বা, মানসম্পন্ন চুল প্রজনন ক্ষমতা এবং জিনগত মানের সংকেত হিসাবে কাজ করতে পারে। তবে গবেষণায় জানা গেছে, পুরুষদের মনে আকর্ষণের ক্ষেত্রে চুলের গুণমান চুলের দৈর্ঘ্য থেকে বেশি প্রভাব ফেলে।

এই গবেষণায় গবেষকরা মনোবিজ্ঞান তত্ত্ব এবং সেক্সুয়াল স্কিমা কনসেপ্ট এর উপর ভিত্তি করে এর ফলাফলগুলি ব্যাখ্যা করেছেন। গবেষকরা এই গবেষণায় বলেছেন যে, চুলের গুণমান একজন মহিলার প্রজনন ক্ষমতার একটি ইনডিকেটর হতে পারে। গবেষকরা মনে করেন, লম্বা ও চকচকে চুল সুস্বাস্থ্য এবং তারুণ্যের সাথে সম্পর্কিত থাকে এবং এটি ব্যয়বহুল যা দ্বারা বুঝা যায় স্বাস্থ্যবান, লম্বা চুলের মহিলারা সম্পদশালী, এসব কারণেও একজন পুরুষ লম্বা ও স্বাস্থ্যবান চুলের মহিলাদের প্রতি আকর্ষণ অনুভব করে থাকতে পারে।

যদিও গবেষণাটিতে গবেষকরা রোমান্টিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে চুলের ভূমিকার উপর জোর দিয়েছেন, তবে তারা এটিও স্বীকার করেছেন যে কেবল মহিলাদের চুলই সেক্সুয়াল ফ্রিকোয়েন্সিকে প্রভাবিত করে না। সম্পর্কের সন্তুষ্টি, অনুভূত প্রতিশ্রুতি এবং বয়সের মতো বিষয়গুলি সেক্সুয়াল ফ্রিকোয়েন্সি গঠনে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। গবেষকরা আরও মনে করেন, শারীরিক বৈশিষ্ট্যগুলি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সম্পর্কের ক্ষেত্রে যৌন আকাঙ্ক্ষা এবং আচরণকে প্রভাবিত করে।

গবেষকরা এই গবেষণাটির সীমাবদ্ধতাগুলিও তুলে ধরেছে। যেহেতু গবেষণাটি শুধুমাত্র দক্ষিণ কোরিয়ান দম্পতিদের  নিয়ে পরিচালিত হয়েছিল তাই গবেষকরা স্বীকার করেছেন যে, স্থান এবং সংস্কৃতিভেদে গবেষণার ফল ভিন্ন হতে পারে। গবেষকরা এ বিষয়ে আরও সূক্ষ্ম ধারণা লাভের জন্য ভবিষ্যতে গবেষণায় বৈচিত্র্যময় জনসংখ্যা এবং আরও উদ্দেশ্যমূলক ব্যবস্থাগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দিয়েছেন।

পরিশেষে বলা যায় যে, চুলের গুণমান এবং দৈর্ঘ্য উভয়ই সেক্সুয়াল ফ্রিকোয়েন্সির সাথে যুক্ত এবং উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলে। স্ত্রীদের চুলের গুণমান রোমান্টিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে দম্পতির বন্ধনকে বাড়িয়ে তোলে। এর থেকে বোঝা যায় যে চুলের গুণমান, সামগ্রিক স্বাস্থ্য এবং জীবনীশক্তিকে প্রতিফলিত করে। চুল একজন মহিলার প্রজনন সম্ভাবনার নির্ভরযোগ্য সংকেত হতে পারে।

জান্নাতুল নাঈম চৌধুরী


তথ্যসূত্র

Cheon, J. E., Kim, J. J., & Kim, Y. H. (2024). Wives with long and high-quality hair have more frequent sex. Frontiers in Psychology, 14, 1294660. https://doi.org/10.3389/fpsyg.2023.1294660